বড় বিপদ থেকে বাঁচাবে ভিটামিন বি১২, কেন জরুরি, কী ভাবে পাবেন

বর্তমান পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যের দিকে নজর দেওয়া অত্যন্ত জরুরি। অতিমারি পরিস্থিতি কাটিয়ে উঠলেও চিকিৎসকরা এখনও নিশ্চিত নয় কোভিড পরবর্তী সময়ে শরীরে কী ধরনের সমস্যা দেখা দিতে পারে। এছাড়া বর্তমানে আমাদের দ্রুত জীবনযাত্রাও রোগের ঝুঁকি বাড়িয়ে তোলে। এ অবস্থায় শরীরের প্রতি অতিরিক্ত যত্নবান হওয়া প্রয়োজন। সুপাচ্য খাদ্যগ্রহণের পাশাপাশি স্বাস্থ্য ভালো রাখতে খেয়াল রাখতে হবে সঠিক পরিমাণে ভিটামিন গ্রহণের দিকেও। শরীরের প্রয়োজনীয় বিভিন্ন ভিটামিনের মধ্যে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন বি-১২। ভিটামিন বি-এর রকমফেরগুলির মধ্যে এই প্রকারটি শরীররে জন্য অত্যন্ত প্রয়োজনীয় এবং শরীরে ঘাটতির ফলে একাধিক রোগ দেখা দেয়। চলুন জেনে নিই ভিটামিন বি-১২ কী? কেন আমাদের শরীরে এর প্রয়োজন? কোন খাবার খেলে মিটবে ভিটামিন বি-১২ চাহিদা?


ভিটামিন বি-১২ কী?
এই প্রকার ভিটামিন জলে দ্রবণীয়। ভিটামিন বি-১২ কোবালামিন নামেও পরিচিত। আট রকমের ভিটামিন বি-এর মধ্যে এটি দেহে খাবারের বিপাক ঘটিয়ে প্রয়োজনীয় শক্তি উৎপাদন করে। এই শক্তি মূলত কার্বোহাইড্রেট বিপাকের ফলেই তৈরি হয়। ভিটামিন বি-১২ জলে দ্রবীভূত হওয়ায় এর অপ্রয়োজনীয় অংশ শরীর থেকে বাইরে বেরিয়ে যায়। তাই  আপনি ভিটামিন বি-১২ বেশি পরিমাণে খাচ্ছেন কিনা সে বিষয়ে চিন্তার কোন কারণ নেই। রোজকার প্রয়োজনীয় খাবার থেকে এইপ্রকার ভিটামিন পাওয়া গেলেও বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই শরীরে এর ঘাটতি লক্ষ্য করা যায়। বিশ্বজুড়ে এক বিপুল সংখ্যক মানুষের শরীরে ভিটামিন বি-১২ এর অভাব দেখা যায়।এই মানুষদের সিংহভাগ মানুষই ভারতীয় কারণ ৩১% ভারতীয় নিরামিষভোজী। যেসব মানুষরা আমিষ খান তাঁরাও নিয়মিত গ্রহণ করেন না এই ভিটামিন। তথ্য বলছে ,দেশের জনসংখ্যার প্রায় ৪৭% মানুষের শরীরে এই ভিটামিনের অভাব রয়েছে।


ভিটামিন বি -১২ কেন গুরুত্বপূর্ন?
ভিটামিন বি -১২ সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন কাজ হল এটি কেন্দ্রীয় স্নায়ুতন্ত্রের বিকাশ, লোহিত রক্ত কণিকা গঠন ও ডিএনএ সংশ্লেষে সহায়তা করে। এই প্রকার ভিটামিন অস্থিমজ্জার গঠনে সহায়তা করে ও হাড়ের স্বাস্থ্য বজায় রাখে। শরীরে এই ভিটামিনের ঘাটতি আপনার মেজাজকে প্রভাবিত করতে পারে এবং বিষণ্ণতার লক্ষণগুলিকে প্রকট করে তুলতে পারে।তাছাড়া  স্বাস্থ্যকর চুল, ত্বক এবং উন্নত মানের নখ করার জন্য এই পুষ্টির প্রয়োজন রয়েছে।
দিনে কত পরিমাণ ভিটামিন বি-১২ প্রয়োজন রয়েছে?
মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ হেলথ অনুসারে, শরীরে ভিটামিন বি-১২ এর প্রয়োজনীয়তা ব্যক্তির বয়স,  লিঙ্গ এবং স্বাস্থ্যের অবস্থার ওপর নির্ভর করে। গর্ভবতী এবং যে মহিলারা বাচ্চাদের বুকের দুধ খাওয়ান তাঁদের ক্ষেত্রে অন্যদের তুলনায় এই প্রকার ভিটামিন বেশি পরিমাণে প্রয়োজন। বয়স অনুযায়ী যে পরিমাণ ভিটামিন বি -১২ প্রয়োজন-
• ০-৬ মাস - প্রতিদিন ০.৪ মাইক্রোগ্রাম
• ৭-১২ মাস - প্রতিদিন ০.৫ মাইক্রোগ্রাম
• ১-৩ বছর বয়সী- প্রতিদিন ০.৯ মাইক্রোগ্রাম
• ৪-৮ বছর বয়সী - প্রতিদিন ১.২ মাইক্রোগ্রাম
• ৯-১৩ বছর বয়সী - প্রতিদিন ১.৮ মাইক্রোগ্রাম
• ১০-৫০ বছর বয়সী - প্রতিদিন ২.৪ মাইক্রোগ্রাম
• গর্ভবতী মহিলা - প্রতিদিন ২.৬ মাইক্রোগ্রাম
• স্তনপান করান যে মহিলা - প্রতিদিন ২.৮ মাইক্রোগ্রাম

কাদের ক্ষেত্রে ভিটামিন বি - ১২ এর ঘাটতির ঝুঁকি রয়েছে?
বেশিরভাগ নিরামিষভোজীদের দেহে এই ভিটামিনের ঘাটতি দেখা যায় কারণ উদ্ভিদ-ভিত্তিক খাদ্য পণ্যগুলিতে এই ভিটামিন থাকে না। ভিটামিন বি-১২ এর প্রাকৃতিক উৎস বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই প্রাণীভিত্তিক খাদ্য।নিরামিষভোজীদের ক্ষেত্রে একমাত্র উপায় সাপ্লিমেন্ট গ্রহণ করা।এছাড়া কিছু নির্দিষ্ট ওষুধ চলাকালীন এই ভিটামিনের শোষণ ব্যাহত হয় ফলে শরীরে ভিটামিন বি -১২ এর ঘাটতি দেখা দেয়।


ভিটামিন বি-১২ এর উৎস

প্রথমে চেষ্টা করুন খাদ্যগ্রহণের মাধ্যম শরীর ভিটামিন বি -১২এর ঘাটতি মেটাতে। যদি প্রতিদিনের খাবারে চাহিদা পূরণ না হয় সেক্ষেত্রে ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী অন্য উপায় মেনে চলতে পারেন।যে খাবারগুলি থেকে এই প্রকার ভিটামিন পেতে পারেন -
• দুধ
• দানাশস্য
• ডিম
• দই
• স্যালমন মাছ
• টুনা
• গরুর মাংস
• মাংসের লিভার ও কিডনি
• মাশরুম
• গাঁজানো খাবার
• পুষ্টিগুণসম্পন্ন ইস্ট

কী কী রোগ হতে পারে এইপ্রকার ভিটামিনের অভাবে?

১. ক্যানসারের সম্ভাবনা বেড়ে যায়
ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ ক্যান্সারের এক গবেষণা পত্রে প্রকাশিত হয়েছে, ভিটামিন বি-১২ কম পরিমাণে গ্রহণ করলে তা গ্যাস্ট্রিক ক্যান্সারের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। জনস্বাস্থ্য পুষ্টির করা সমীক্ষাও বলছে যেসব মানুষ বেশি পরিমাণে এই প্রকার ভিটামিন গ্রহণ করেন তাদের কলোরেক্টাল ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে। শুধু তাই নয়,এটি অগ্ন্যাশয়ের ক্যান্সারের সম্ভাবনাও কমিয়ে দেয়।

২. ডিমেনশিয়া
ক্রমাগত কিছু কথা আমাদের মধ্যে অনেকই ভুলে যায়, এই সমস্যাকে চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় ডিমেনশিয়া বলে।এই রোগের অন্যতম কারণ শরীরে ভিটামিন বি-১২ এর অভাব। বয়স্কদের ক্ষেত্রে এই সমস্যা বেশি হলেও এখন অনেক মাঝবয়সীদের মধ্যেও এই রোগ লক্ষ্য করা যায়।


৩. দুর্বল পেশী
ভিটামিন বি -১২ এর অভাবে মাংসপেশিতে সমস্যা দেখা দেয়। এই প্রকার ভিটামিনের অভাবে পেশীতে অক্সিজেনের অভাব হয় ফলে পেশী দুর্বল হয়ে পড়ে।


৪. ব্যথা অনুভব
অকারণে শরীরে সূঁচ ফোঁটানোর মত ব্যথা অনুভব হয়? এর অন্যতম কারণ দেহে ভিটামিন বি -১২ এর ঘাটতি।এর ফলে হাত পা অসাড় লাগে। বিভিন্ন অঙ্গে বৈদ্যুতিক তরঙ্গের মতো ছুটে যায় বলে মনে হয়। এতে স্নায়ুও ক্ষতিগ্রস্থ হয়। শরীরে অক্সিজেনের পরিমাণ কমে যায় এবং লৌহ রক্তকণিকার উৎপাদনও কমিয়ে দেয়। 

More Articles

;