এক কিডনি গ্রাম! তালিবান জমানায় অঙ্গ বিক্রি করেই বাঁচতে হচ্ছে ওদের

ইউক্রেনে রাশিয়ার সেনা অভিযান দ্বিতীয় সপ্তাহে পড়ল। লাখ লাখ মানুষ ইতিমধ্যেই ঘরছাড়া, চূড়ান্ত কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন। রুশ এবং ইউক্রেনের সরকারের মধ্যে যুদ্ধ বিরতি হচ্ছে কিছু ঘণ্টার, যাতে সাধারণ মানুষেরা যুদ্ধক্ষেত্র, না, বলা উচিত তাদের বাসস্থান যাকে যুদ্ধক্ষেত্রতে পরিনত করা হয়েছে তা ছেড়ে পালাতে পারেন। সারা বিশ্বের নজর এখন ইউরোপের এই ভুখণ্ডে। কিন্তু এই মুহূর্তে শুধু ইউক্রেনের মানুষই যুদ্ধের শিকার হয়ে অতি কষ্টে দিন কাটাচ্ছেন না। সেই তালিকায় রয়েছে আরো অনেক দেশ, তার মধ্যে অন্যতম আফগানিস্তান।

তালিবানরা ক্ষমতায় আসার পর দেশটার ওপর চেপেছে বিভিন্ন ধরণের অর্থনৈতিক বাধা নিষেধ। অর্থনীতির অবস্থা ঠেকেছে তলানিতে। তালিবানরা যদিও যুদ্ধ জয়ের ছয় মাস পরেও বিজয় উৎসব চালিয়ে যাচ্ছেন এবং দেশের মানুষকে বার্তা দিচ্ছেন যে তাঁরাই আফগানিস্তানের সব সমস্যার শ্রেষ্ঠ সমাধান। কিন্তু আফগানিস্তানের তৃতীয় বৃহত্তম শহর হেরাটের চিত্র কিন্তু অন্য রকম কথা বলছে। সেই চিত্র ভয়াবহ এবং আতঙ্ক জাগানোর জন্যে যথেষ্ট। কি সেই চিত্র?

হেরাটের একদম লাগোয়া একটি গ্রাম হল সায়শানবা বাজার। সেই গ্রামের বেশিরভাগ মানুষই তালিব-আমেরিকান যুদ্ধের ধ্বংসাবশেষে কোনো রকমে জীবিত আছেন। সেই গ্রামের একজন হলেন নুরুদ্দিন। তাঁর কোনও জীবিকা নেই, মাথার ওপর অনেক টাকার দেনা এবং নিজের শিশুদের খেতে দিতে পারছেন না। উপায় না পেয়ে নিজের একটা কিডনি বিক্রি করে দিয়েছেন। কিন্তু নুরুদ্দিন একা নন, এই গ্রামের বেশিরভাগ বাসিন্দা এক পথে হাঁটছেন এবং এমন ভাবেই তাদের এই অঙ্গ বিক্রির খবর ছড়িয়ে পড়েছে যে গ্রামের নাম হয়েছে "এক কিডনি গ্রাম", বা One Kidney Village।

হ্যাঁ, আপনি ঠিকই পড়ছেন। তালিবানের 'দয়ায়' প্রায় আড়াই কোটি মানুষ আজ খরার কবলে পরতে চলেছেন, পাঁচ লক্ষ মানুষ হারিয়েছেন জীবিকা নির্বাহের পথ। শুধু খাবার কেনা বা দেনা মেটানোর জন্যে নয়, নিজেদের সন্তানকে যাতে বিক্রি করতে না হয় সেই কারণেও তাঁরা এই কাজ করতে বাধ্য হচ্ছেন।

আজিজার কথাই ধরা যাক। ২০ বছর বয়সি আজিজার তিন সন্তান। তিনি বলছেন, তিনি অনেকদিন ধরে দালালের মাধ্যমে তার একটি কিডনি বিক্রি করার চেষ্টায় আছেন, কিন্তু ক্রেতা পাচ্ছেন না। এইভাবে চলতে থাকলে তাঁকে যে তার এক বছর বয়সী কন্যাকে বিক্রি করে দিতে হবে।

এমনও নয় যে এই ভাবে কিডনি বিক্রি করে তাদের বিশেষ লাভ হয়েছে। নুরুদ্দিন এখন আর কোনো কাজ করতে পারেন না, কোনো ভারী বস্তু ওঠাতে তিনি আর সক্ষম নন। এমনকি কিডনি বিক্রি করে খুব বেশি অর্থও তিনি পাননি। তার একটি কিডনি বিক্রি হয়েছে মাত্র দেড় হাজার ডলারে। আগে একটি কিডনি বিক্রি করে পাওয়া যেতো প্রায় চার হাজার ডলার। কিন্তু এমন মন্দা এসেছে আফগানদের জীবনে, যে নিজেদের অঙ্গও বিক্রি করে দিতে হচ্ছে, আর দামও খুব বেশি পাচ্ছেননা। এখন নুরুদ্দিনের ভরসা তার বারো বছরের পুত্র। জুতো পালিশ করে পরিবারের মুখে খাবার তুলে দিচ্ছে সে।

কিন্তু এই ভাবে অঙ্গ বিক্রি করা তো বেআইনি? হ্যাঁ, কিন্তু তালিবানের রাজত্বে আইনের শাসন কি আশা করা সম্ভব? কোনোভাবেই নজরদারি করা হয়না এই ধরণের বিষয়ের ওপর, এবং দালালেরা খুব স্বাধীন ভাবেই নিজেদের কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। তাঁরা ক্রেতা খোঁজেন, সেটা শুধু আফগানিস্তানে সীমাবদ্ধ নয়, পাকিস্তান, এমনকি ভারতেও আফগান কিডনি বিক্রি হচ্ছে।

এই গ্রামের একটি পরিবারের এতটাই ভয়াবহ অবস্থা, যে পাঁচ ভাইকেই তাদের কিডনি বিক্রি করে দিতে হয়েছে। ওই পরিবারের একজন গুলাম নবী বলছেন, "আমাদের দেনা আরও বেড়েছে, দারিদ্রে আরও ডুবে যাচ্ছি।" ভাবুন, পাঁচ ভাই কিডনি বিক্রি করা সত্ত্বেও তাদের রেহাই মিলছেনা।

অন্যান্য দেশে কিডনি বিক্রি বা দান করলে দাতাকে চিকিৎসাধীন থাকতে হয়, পর্যাপ্ত খাবার খেতে হয়, এবং সব নিয়ম মেনে চললে তিনি নিয়মিত জীবনে ফিরে যেতে পারেন। কিন্তু দরিদ্র মেটাতে যারা এই কাজ করছেন, তাদের জন্যে অপারেশন পরবর্তী চিকিৎসা বিলাসিতা। স্বাভাবিক ভাবেই তাঁরা অকেজো হয়ে পড়ছেন। এতটাই খারাপ অবস্থা হচ্ছে যে তারা বেশিরভাগ কাজ করার জন্যেই আর সক্ষম থাকছেননা।

পশ্চিমী নেতারা কি শুনছেন? জো বাইডেনের কাছে কি কেউ পৌঁছে দিয়েছে এই খবর গুলো? বা রাষ্ট্রপুজ্ঞের কাছে? সব উন্নত দেশ রাশিয়ার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষেপ নিচ্ছে, সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে ইউক্রেনের যুদ্ধ বিধ্বস্ত বাসিন্দাদের প্রতি, যেটা খুবই প্রশংসনীয়। কিন্তু হেরাটের এই মানুষ গুলো? তারা কি ইওরোপিয়ানদের কাছে মানুষের পর্যায়ে পড়েন না? পশ্চিমী সংবাদমাধ্যমে অনেক জায়গাতেই সাংবাদিকদের মুখে শোনা গেছে আকুতি, এরা আফগান বা সিরিয়ার বাসিন্দা নন, এরা ইউরোপিয়ান। তাঁরা ইউরোপিয়ানদের কষ্ট চোখে দেখতে পাচ্ছেননা। কিন্তু সিরিয়া? আফগানিস্তান? ওরা অনুন্নত দেশ, ওদের কপালে এমন হওয়া স্বাভাবিক।

রবীন্দ্রনাথ বা জন লেনন আজ বেঁচে থাকলে কি বলতেন? এই একুশ শতকের প্রথম দুই দশকই যে পরিমাণ অমানবিকতা দেখে ফেলছে, তা অবিশ্বাস্য। কে জানে, আগামী দিন আর কত নিষ্ঠুর হবে আমাদের জন্যে।

More Articles

;