কর্মজীবনে উন্নতি চাইলে এভাবে সাজাতে হবে অফিস, বলছেন বাস্তুবিদরা

বাস্তু দোষ শুধুমাত্র বাড়িতে তৈরি হয়, এমন ধারণা সঠিক নয়; অফিস, দোকান, কারখানা সর্বত্র বাস্তু সমস্যা থাকতে পারে, এমনটাই মনে করেন বাস্তুবিদ‍রা। বিশেষজ্ঞরা বলেন, বাস্তু সঠিক না হলে কর্মক্ষেত্রে উন্নতি অধরাই থেকে যায়। অনেক শ্রমের পরও কাঙ্ক্ষিত সাফল্য অর্জন করতে পারেন না অনেকেই। তাই  বাস্তুমতে বিশ্বাসী হলে নির্দিষ্ট ছক মেনে সাজিয়ে ফেলা দরকার নিজের অফিসের প্রতিটি কোণ। বাস্তুবিদরা বলছেন, বাস্তু মেনে অফিস সাজালে সাফল্য আসবেই, কেটেও যাবে সব বাধাবিপত্তি। অফিসে অর্থের আগমন, ব্যবসায়িক স্থিতিশীলতা- সব ক্ষেত্রেই বাস্তু গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। তাই কর্মক্ষেত্রে সাফল্যের শিখরে উঠতে মাথায় রাখতে পারেন নিম্নোক্ত বাস্তু টিপসগুলি।

 

১. ফাঁকা নির্জন জায়গা সত্ত্বেও জনসমাগম রয়েছে, এমন জায়গায় অফিস করা বেশি উপকারী। ভিড়, যানজট এবং ভালো যোগাযোগ ব্যবস্থা রয়েছে এমন জায়গায় অফিস হওয়া উচিত। চলমান রাস্তা দিয়ে ঘেরা অফিস খুবই সমৃদ্ধ মনে করা হয়।


২. উত্তর, উত্তর-পূর্ব, উত্তর-পশ্চিম বা উত্তর-পূর্ব দিকে মুখ করা অফিস বিল্ডিং অত্যন্ত সমৃদ্ধ বলে বলা হয়। সৌভাগ্য এবং শুভ শক্তি সবসময় এই দিকগুলি থেকে আসে বলে মনে করা হয় বাস্তুশাস্ত্রে। 

আরও পড়ুন: একই মানুষের বহু যৌনসম্পর্কে আগ্রহ, কেন এমন হয়!


৩. কাজের সময় উত্তর বা পূর্ব দিকে মুখ করে বসা খুব শুভ এবং কর্মরত ব্যক্তিও সতেজ অনুভব করে। উত্তর দিক হল কুবেরের অবস্থান, ইনি অর্থের দেবতা।আপনি যদি পেশাদার হন বা কোনও পরিষেবা শিল্পে থাকেন, তবে পূর্ব দিকটি ভালো। পূর্ব দিক হল সূর্য উদয়ের দিক, এটি সমস্ত দিক থেকে উন্নতিতে সাহায্য করে। 


৪. আপনার ওয়ার্কস্টেশন উত্তর দিকে মুখ করে থাকলে, আপনার ফাইল, ফোল্ডার এবং কম্পিউটার ইত্যাদির মতো যে-কোনও ইলেকট্রনিক গ্যাজেট আপনার টেবিলের বাম দিকে রাখুন। যদি আপনার ওয়ার্কস্টেশন পূর্ব দিকে মুখ করে থাকে, তবে নিশ্চিত করুন যে, উল্লিখিত সব ধরনের অফিসের জিনিসপত্র আপনার টেবিলের ডানদিকে রাখা হয়েছে।


৫. বাস্তুমতে অফিস টেবিলের জন্য আপনার ওয়ার্কটেবিল একটি নিয়মিত আকৃতির হওয়া উচিত, যেমন বর্গাকার বা আয়তাকার টেবিলই এক্ষেত্রে আদর্শ। এল-আকৃতির বা অনিয়মিত আকারের টেবিল শুভ নয়। টেবিলের দৈর্ঘ্য এবং প্রস্থের অনুপাত ১:২-এর বেশি হওয়া উচিত নয়। অনিয়মিত আকার বিভ্রান্তি তৈরি করে। যদি টেবিলের দৈর্ঘ্য বড় হয়, তবে এটি বিভ্রান্তি সৃষ্টি করে এবং বিলম্বের বার্তা দেয়।


৬. বাস্তুমতে অফিস ডেস্কে দেবতার মূর্তি বা ছবি রাখবেন না, কারণ এটি শুভ বলে মনে করা হয় না। ঈশ্বরকে অসীম ক্ষমতার অধিকারী হিসাবে ধরা হয়, এবং দেবতার মূর্তিগুলিকে দেওয়া স্থান প্রতিদিনের জিনিস থেকে আলাদা হওয়া উচিত।


৭. আপনার ওয়ার্কস্টেশন/ কাজের টেবিলে খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন। অন্য যে-কোনও ধরনের কাজ টেবিলে না করাই ভালো।


৮. আপনার কাজের টেবিলে বসে ম্যাগাজিন পড়বেন না বা অন্য ধরনের সময় কাটানোর কাজ করবেন না। অফিসের কাজের জায়গাটি অর্থ উপার্জন এবং কাজের জন্য ব্যবহার করা হয়। টেবিলে পড়া এবং ঘুমোনো ব্যবসার ক্ষেত্রে নেতিবাচক শক্তি আকর্ষণ করে।


৯. আপনার টেবিল অপরিষ্কার এবং অগোছালো রাখবেন না। বাস্তুমতে, অপরিষ্কার এলাকা মা লক্ষ্মী পছন্দ করেন না তাই ব্যবসার জায়গার জন্য পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতা অবশ্যই জরুরি। এতে অর্থ উপার্জন কমে। চারিদিকে বিশৃঙ্খলতা, বিভ্রান্তি এবং সমস্যার সৃষ্টি হয়। 


১০. অফিসের ফাইলগুলি দেওয়ালের পশ্চিম দিকে রাখলে শুভ ফল দেবে। আদালতের মামলা এবং ট্যাক্স সংক্রান্ত সংবেদনশীল ফাইল উত্তর-পূর্ব দিকে রাখতে হবে।


১১. ব্যাংকের কাগজপত্র সংক্রান্ত ফাইলগুলি দক্ষিণ-পশ্চিম দিক করে রাখতে হবে। কেশর বা কুমকুম তিলক ব্যাঙ্কে এবং খাতার খাতায় লাগাতে ভুলবেন না।


১২. অফিসের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশও নগদ অর্থের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এটি স্থিতিশীল দিক এবং এখানে রাখা নগদ ভালো ফল দেয়।


১৩. মার্কেটিং এবং সেলস কর্মীদের জন্য উত্তর-পশ্চিম কোণে দেওয়ালে উত্তর দিকে মুখ করে বসার ব্যবস্থা করুন। উত্তর-পশ্চিম দিক এই বিভাগের কর্মীদের শুভ ফল দেয়।


১৪. অ্যাকাউন্টস বিভাগে কর্মরতদের জন্য অফিসের পূর্ব দিকে বসার জায়গা করা উচিত বা এক্ষেত্রে পূর্ব দিকে মুখ করে কাজ করা ভালো।


১৫. বাস্তুমতে অফিস প্রধানের জন্য অফিসের দক্ষিণ-পশ্চিম অংশ শুভ ফল দেবে। অফিসের দক্ষিণ-পশ্চিম দিকটি খুব শক্তিশালী। এই দিক অফিসের প্রধানকে সকল কর্মচারী এবং সহযোগীদের নিয়ন্ত্রণ ও পরিচালনা করতে সহায়তা করে। ফলে সহজেই ব্যবসায় উন্নতি সম্ভব হবে।

More Articles

;