সফট ড্রিংকস না কি বিষ? নিজের অজান্তেই মারাত্মক বিপদ ডেকে আনছেন

 
অ্যালকোহল লিভারের পক্ষে কতখানি ক্ষতিকারক, তা নতুন করে আজ বলতে হবে না। প্রতিদিন মদ্যপানের ফলাফল লিভার ক্যানসার, একথাও সকলেরই জানা। কিন্তু একই সমস্যায় ফেলতে পারে সফট ড্রিংকসগুলিও। অর্থাৎ, যাঁরা খুব আয়েশ করে কোল্ড ড্রিংকস খেয়ে ফেলেন, তাঁরা সাবধান হোন, কারণ এই পানীয়ও আপনাকে লিভার ক্যানসারের দিকে ঠেলে দিতে পারে। নতুন এক গবেষণায় দেখা গেছে, গ্লুকোজ-সমৃদ্ধ সোডার মতো পানীয়গুলি অ্যালকোহলের মতোই ক্ষতি করে শরীরের। গবেষণায় প্রমাণ পাওয়া গেছে যে, এই ধরনের পানীয়গুলিও লিভার ক্যানসারের সম্ভাবনা বাড়িয়ে দেয় বহুগুণ।

নতুন গবেষণা কী বলছে ?

২০২২ নিউট্রিশন লাইভ অনলাইন ইভেন্ট সফট ড্রিংকস এবং লিভার ক্যানসার-সংক্রান্ত একটি গবেষণাপত্র পেশ করা হয়। গবেষণার জন্য ৯০ হাজারেরও বেশি মহিলার শরীর নমুনা সংগ্রহ করা হয়। এর মধ্যে একভাগ মহিলা ছিলেন, যাঁরা প্রায় প্রতিদিন গ্লুকোজ-সমৃদ্ধ এই পানীয়গুলি পান করেন। আর অন্যভাগে ছিলেন এমন মহিলা, যাঁরা মাসে তিনবারেরও কম এই ধরনের পানীয় গ্রহণ করেন।

গবেষকরা জানিয়েছেন, পোস্ট-মেনোপজ পর্যায়ে থাকা মহিলাদের লিভার ক্যানসার হওয়ার ঝুঁকি সবচেয়ে বেশি। যদি তাঁরা দিনে অন্তত একবারও গ্লুকোজ-সমৃদ্ধ পানীয় পান করেন, তবে ক্যানসারের ঝুঁকি ৭৮% বেশি এই ধরনের মহিলাদের। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের নিউট্রিশন বিভাগের অধীনে টিএইচ চান স্কুল অফ পাবলিক হেলথ-এর অধ্যাপক ড. জুহং ঝাং বলেছেন, 'আমাদের গবেষণা থেকে জানা গেছে, সুগার-সমৃদ্ধ পানীয়গুলি লিভার ক্যানসারের সম্ভাবনা অনেকখানি বাড়িয়ে দেয়। তাই আমাদের গবেষণার ফলাফলকে সত্য ধরে এগোলে লিভার ক্যানসারের বিরুদ্ধে লড়তে গেলে এই ধরনের পানীয় গ্রহণ কম করতে হবে। তবেই সুস্থ থাকা যাবে।'

আরও পড়ুন: অত্যধিক ধূমপান চরম ক্ষতি ডেকে আনছে কিডনির, জেনে নিন কীভাবে

তিনি আরও বলেছেন যে, আগের তুলনায় এখন মানুষ অনেক কম এই পানীয় গ্রহণ করেন। ২০১৭-'১৮ সালেও প্রাপ্তবয়স্ক সাদা চামড়ার মানুষদের ৬৫ শতাংশই দিনের কোনও এক সময়ে সুগার-সমৃদ্ধ পানীয় গ্রহণ করতই। তবে ঝাং গবেষণা-সংক্রান্ত আরও একটি বিষয় উল্লেখ করেছেন যে, এর থেকে কিন্তু প্রমাণ হয় না, শুধুমাত্র গ্লুকোজ-সমৃদ্ধ পানীয়র কারণেই লিভার ক্যানসার হয়। তবে দুইয়ের মধ্যে যোগ অবশ্যই রয়েছে। তাই এই ধরনের পানীয় গ্রহণের ব্যাপারে সচেতন হওয়া প্রয়োজন।

চিকিৎসক ট্রিস্টা বেস্ট এই প্রসঙ্গে বলেছেন, 'সোডা লিভারের পক্ষে মারাত্মক ক্ষতিকারক। সোডার কারণে লিভারে ফ্যাট জমতে থাকে, যার ফলে নানা ধরনের লিভারের রোগ দেখা দেয়। এর প্রধান কারণ হল সোডার মধ্যে থাকা পরিশ্রুত চিনি এবং উচ্চ ফ্রুক্টোজ কর্ন সিরাপ। এর আগেও কিছু গবেষণায় ইঙ্গিত পাওয়া গেছে পাওয়া গেছে যে, পরিশোধিত চিনি লিভারে অ্যালকোহলের থেকেও বেশি ক্ষতি করে, বিশেষত অত্যধিক মাত্রায় গ্রহণ করলে। এতে উপস্থিত ফ্রুক্টোজ হজম করতে লিভারকে অনেক পরিশ্রম করতে হয়, যার কারণে অনেক সময় লিভার ফুলে যায়। তাই যুবক, শিশু-সহ যে কোনও বয়সের মানুষেরই উচিত এই ধরনের পানীয় এড়িয়ে চলা।'

সফট ড্রিংকসের মারাত্মক ফলাফল

সম্প্রতি 'গুট’ জার্নালে প্রকাশিত গবেষণা বলছে, প্রাপ্তবয়স্করা, যাঁরা প্রতিদিন দুই বা তার বেশি গ্লুকোজযুক্ত পানীয় পান করেন, তাঁদের কোলন ক্যানসারের ঝুঁকিও দ্বিগুণ হয়। বিশেষত, মহিলাদের এর থেকে আরও বেশি সতর্ক হওয়া দরকার, কারণ ৫০ বছর বয়সে পৌঁছনোর আগে তাঁদের ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

এ-বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন যে, চিনি-যুক্ত পানীয় অন্যান্য দিক থেকেও স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। এসব পানীয়তে কৃত্রিম চিনি ছাড়াও প্রিজারভেটিভ ব্যবহার করা হয়। এর অতিরিক্ত সেবন স্থূলতার সমস্যা বাড়িয়ে দেয়। ক্রমবর্ধমান স্থূলতার কারণে অকাল হার্ট অ্যাটাক, ব্লাড প্রেশার, ডায়াবেটিস, থাইরয়েড ও হরমোনের সমস্যা অল্প বয়সেই ব্যক্তিকে কাবু করে ফেলে। হার্ভার্ডের গবেষকরা জানিয়েছেন, সফট ড্রিংকসের সঙ্গে সরাসরি স্থূলতার সম্পর্ক রয়েছে। ১২ বছর বয়সি শিশুদের নিয়ে এক গবেষণায় দেখা গেছে, যেসব শিশুরা সোডা পান করে, তাদের মধ্যে স্থূলতার হার বেশি। নিয়মিত সফট ড্রিংকস গ্রহণ করলে স্থূলতার ঝুঁকি দেড় গুণেরও বেশি বেড়ে যায়।

এছাড়া সফট ড্রিংকসে অতিমাত্রায় ফসফোরিক অ্যাসিড থাকায় তা শরীরে ক্যালসিয়াম সরবরাহে বাধা সৃষ্টি করে, যার ফলে অস্টিওপোরোসিস হতে পারে। ফসফরিক অ্যাসিড পাকস্থলীতে বিক্রিয়া করে খাবার থেকে প্রয়োজনীয় পুষ্টি গ্রহণে বাধার সৃষ্টি করে এবং হজম প্রক্রিয়ায় জটিলতার কারণ হতে পারে। নিয়মিত সফট ড্রিংকস গ্রহণ করলে দাঁতের এনামেল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এই ধরনের পানীয় দীর্ঘদিন পান করলে ধীরে ধীরে স্মৃতিশক্তি নষ্ট হয়ে যেতে পারে। গর্ভবতী মহিলাদের সন্তান বিকলাঙ্গ হতে পারে। মুখের স্বাদ নষ্ট হয়ে যাওয়ার সঙ্গে মেজাজ খিটখিটে হয়ে উঠতে পারে। তাই সফট ড্রিংকস পান করার আগে দশবার ভাবুন।

More Articles

;