পাঞ্জাব ভোটে কংগ্রেসের ঘরের শত্রু কংগ্রেসই!

পাঞ্জাব প্রদেশ কংগ্রেস কমিটির সচিব নভজ্যোত সিং সিধু একটি বক্তব্যে বলেন, “কংগ্রেসকে (পাঞ্জাব) খোদ কংগ্রেস ছাড়া আর কেউ হারাতে পারবে না।” এই বক্তব্য উদ্ধৃত করে দ্রুত ট্যুইট করে এএনআই নিউজ। আসন্ন বিধানসভা ভোট নিয়ে পাঞ্জাব কংগ্রেসের দলাদলির দিকেই ইশারা করছে এই বক্তব্য। মাঝা, দোয়াবা ও মালওয়া–পাঞ্জাবের এই তিনটি ক্ষেত্রের প্রতিনিধিদের পারস্পরিক বোঝাপড়ার অভাব, কলহ, এমনকী পরস্পরের প্রতি আনা নানান গুরুতর অভিযোগে জর্জরিত পাঞ্জাব কংগ্রেস।

২০১৭ সালে সিধু কংগ্রেসের সদস্যপদ যখন গ্রহণ করেছিলেন, তখন শুধু পূর্ব অমৃতসর নয়, সমগ্র অমৃতসরের আসনের অধিকর্তাদের সঙ্গে সুসম্পর্ক ছিল তাঁর। কিন্তু বর্তমানে পাশা উলটে গেছে। এই অঞ্চলে সিধুর রাজনৈতিক সম্পর্কগুলির অবনতি ঘটেছে গত কয়েক বছরে। অমৃতসর সেণ্ট্রাল থেকে কংগ্রেসের হয়ে নির্বাচন লড়ছেন ডেপুটি সিএম ওম প্রকাশ সোনি, পশ্চিম অমৃতসর থেকে ক্যাবিনেট মন্ত্রী রাজ কুমার ওয়ার্কা—দুজনের কারোর সঙ্গেই সম্পর্ক ভালো নয় সিধুর। এমনকী ২০১৭তে সিধু যাঁর হয়ে প্রচার চালিয়েছিলেন, সেই সুনিল দুতিও (উত্তর অমৃতসরের এম এল এ) সুসম্পর্ক রাখতে পারেননি তাঁর সঙ্গে। অমৃতসরের এম পি গুরজিত আউজলাও এই তালিকায় রয়েছেন। বাতালার আসনটিতে অশ্বিনী কুমারকে টিকিট পাইয়ে দিতে সমর্থ হয়েছেন সিধু, কিন্তু তা কংগ্রেসের মধ্যে জটিলতা আরো বাড়িয়ে তুলেছে।

আরও পড়ুন-এবার আঙুল স্বয়ং প্রধানমন্ত্রীর দিকে! কেন নতুন করে চাঞ্চল্য পেগাসাস নিয়ে

এই দলীয় সংঘাত আখেরে শিরোমণি আকালি দলের প্রার্থী বিক্রম সিং মাজিথিয়াকেই লাভবান করবে বলে মনে করছেন অনেকে। পূর্ব অমৃতসর থেকেই সিধুর বিরুদ্ধে ভোটে দাঁড়াচ্ছেন বিক্রম।

তবে মুখ্যমন্ত্রীর পদ নিয়ে সমস্যা দেখা দিয়েছে। চরণজিৎ সিং চান্নি নাকি নভজ্যোৎ সিধু? এই প্রশ্ন গুরুতর। বিশ্বস্ত সূত্রের খবর স্বয়ং সোনিয়া গান্ধী নাকি এ সমস্যার মীমাংসা করে ফেলতে বলেছেন এক থেকে দুদিনের মধ্যে। কংগ্রেস এ বিষয়ে দলীয় সদস্যদের মতামত চেয়েছে। যদিও এ ব্যাপারে চরণজিতের পাল্লাই ভারি বলে মনে করছেন অনেকে, তবে সিধুর অনুগামীরাও সম্পূর্ণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলেই খবর।

কয়েকদিন আগে কংগ্রেস ঘোষণা করে দ্বিতীয় নির্বাচনকেন্দ্র ভাদাউর থেকে ভোটে লড়বেন চান্নি। এই খবর চাঞ্চল্য সৃষ্টি করে। এই পদের জন্য আগে চামকৌর সাহিবকে নির্বাচন করা হয়েছিল। কিন্তু এলাকাটিতে আম আদমি পার্টির গুরুতর প্রভাব প্রতিপত্তির জন্যই প্রার্থী বদলানো হয়েছে বলে মনে করছেন দলের লোকেরা। এই ঘটনায় ব্যপক দ্বিধার মুখে কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব। কংগ্রেসে প্রচারে দলীয় অন্তর্ঘাত প্রভাব ফেলতে পারে–এর আশঙ্কা এতটাই বেড়েছে যে উচ্চ নেতৃত্বে অবস্থানকারী রাহুল গান্ধী পর্যন্ত বলতে বাধ্য হয়েছেন, “দল যে কোনও একজনকেই বাছবে। দুই ব্যক্তিই একসঙ্গে নির্বাচনী প্রচারে নেতৃত্ব দিতে পারেন না।” গত বৃহস্পতিবার জলন্ধরে বক্তব্য রাখার সময় তিনি আরও বলেন, “সাধরণত সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রী কে হবেন তা আগে থেকেই নির্ধারণ করা হয় না, কিন্তু কংগ্রেসের কর্মীরা যদি একান্তই তা চান, আমরা তাও করতে রাজি। কিন্তু সমস্তই হবে কর্মীদের মতামত নিয়ে। তারাই নির্ধারণ করবে প্রার্থী।”

পাঞ্জাবের শাসক দল পূর্বে মন্তব্য করেছিল এ ব্যপারে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে ২০ ফেব্রুয়ারির নির্বাচনের পর। কিন্তু পরিস্থিতি ক্রমেই ঘোরালো হয়ে উঠছে। রাহুল গান্ধী সরাসরি জানিয়েছেন পাঞ্জাব কংগ্রেসের মুখ্যসচিব সিধু এবং মুখ্যমন্ত্রী চরণজিৎ চান্নির পারস্পরিক বিরোধ দিনদিন আরো প্রকাশ্যে উঠে আসছে, যা সমস্ত দলের জন্য অস্বস্তিদায়ক। এই বক্তব্যের সময় উল্লিখিত দুইজনই মঞ্চে ছিলেন। রাহুল গান্ধী বক্তব্য রাখার আগেই অবশ্য তাঁরা নিজেদের মধ্যে মিটমাট করে নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছিলেন। সিধু জানান, এ বিষয়ে রাহুল গান্ধীর সিদ্ধান্তকেই বিনা বক্যব্যয়ে মেনে নেবেন তিনি। চান্নিও নাটকীয় ভঙ্গীতে হাত-জোড় করে জানান, আমাদের নিজস্ব মতানৈক্যে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের মতো বহিরাগতকে সুবিধা করে দেওয়া উচিত হবে না। প্রসঙ্গত সিধুর জাতশত্রু অমরিন্দর সিং-কে পার্টি স্যাক করার পরই মুখ্যমন্ত্রী হয়েছিলেন চান্নি। কিন্তু প্রধান আসন নিয়ে প্রতিযোগিতা দুজনের সম্পর্কে চিড় ধরিয়েছে। আগামী ১০ মার্চ পাঞ্জাবসহ আরো চারটি রাজ্যের নির্বাচনী ফলাফল ঘোষণা হবে।

ইতিমধ্যে পাঞ্জাবে সম্ভাব্য মুখ্যমন্ত্রীর মুখ বেছে নিতে টেলি-পোল শুরু করেছে কংগ্রেস। ভোটারদের ফোন করে এ বিষয়ে মতামত চাইছে তারা।

 

ছবিঋণ- ফেসবুক

তথ্যঋণ–

Advantage Team Channi In Punjab Congress Tussle? Sonia Gandhi Holds Talks [WWW Document], n.d. . NDTV.com.

Assembly elections 2022 live updates: Congress starts tele-poll for Punjab CM face [WWW Document], n.d. . The Times of India.

January 30, I.T.W.D.C., January 30, 2022UPDATED:, Ist, 2022 18:39, n.d. Only Congress can defeat Congress in Punjab, says Navjot Singh Sidhu [WWW Document]. India Today.

Punjab Congress has a familiar problem: factionalism, 2022. . The Indian Express.

More Articles

;