আমূল বদলে যাচ্ছে ভারতীয় রেল পরিষেবা! এখন থেকে যাত্রীদের যে নিয়মগুলি মানতেই হবে

সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, রেলের নতুন নিয়ম সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কি না, সেই দায়িত্ব বর্তমানে দেওয়া হয়েছে রেলের সব কর্মীকে। তাঁদের দায়িত্ব, রেলযাত্রীরা নিয়ম সঠিকভাবে পালন করছে কিনা, তা লক্ষ রাখা।

রেল পরিবহণ এমন এক ব্যবস্থা, যা আমাদের দেশে একটি গুরুত্বপূর্ণ এবং প্রয়োজনীয় পরিবহণ মাধ্যম হিসেবেই গণ্য করা হয়। আমাদের দেশে প্রতিদিন প্রায় কোটি কোটি মানুষ এই ট্রেনের মাধ্যমে এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে খুব সহজেই যাতায়াত করতে পারেন। অফিস টাইমে তাড়াহুড়োর মধ্যে হোক কিংবা কোনও জায়গায় কিছুদিনের জন্য ঘুরতে যাওয়ার জন্যই হোক, রেলযাত্রা সব সময়ই মানুষের খুব পছন্দের। ট্রেনে মানুষই কেবল যাতায়াত করে না, এছাড়াও আমরা বিভিন্ন মালপত্র এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় সহজেই ট্রেনের মাধ্যমে পাঠাতে পারি, যা আমাদের কাছে 'মালগাড়ি' নামে পরিচিতি লাভ করেছে।

ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ সম্প্রতি নতুন এক নিয়ম প্রবর্তন করেছে। রেল কর্তৃপক্ষর এই সিদ্ধান্ত সম্পূর্ণরূপেই সাধারণ যাত্রীদের কথা মাথায় রেখেই নেওয়া হয়েছে। এর দ্বারা ভারতীয় রেল পরিষেবার নকশা আমূল বদলে যেতে চলেছে। কী এই নতুন নিয়ম, চলুন দেখে নেওয়া যাক।

ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ সকল রেলযাত্রীর সুবিধের কথা মাথায় রেখে একটি নতুন নিয়ম কার্যকর করতে চলেছে। বলে রাখা ভালো, ভারতীয় রেল কর্তৃপক্ষ (Indian Railway Organisation) সকল যাত্রীর সুবিধার্থে অনেক সময়েই রেলের নিয়মগুলিতে একাধিক সংশোধন করে চলেন। উদ্দেশ্য একটাই, সাধারণ মানুষের যাতে কোনওরকমের অসুবিধা না হয়। এবার রাতে যাত্রীদের ঘুমের অসুবিধে যাতে না হয়, সেই কথা মাথায় রেখেই বেশ কিছু নতুন নিয়ম আনল রেল, যা আমূল বদলে ফেলতে চলেছে রেল পরিষেবা। বলা ভালো, এই নিয়ম প্রবর্তন হওয়ার পর বর্তমানে আর রাতের ঘুমে কোনওরকম ব্যাঘাত ঘটবে না সাধারণ রেল যাত্রীদের। তবে এক্ষেত্রে রয়েছে একাধিক বিধিনিষেধ।

আরও পড়ুন: ভারতের প্রথম বেসরকারি ট্রেনের অন্দরে কী কী ব্যবস্থা থাকছে?

উল্লেখ্য, নতুন এই নিয়মটি শুধুমাত্র কার্যকর করা হয়েছে রাতের ভ্রমণের কথা মাথায় রেখে। নতুন নিয়মের অধীনে এবার থেকে ভ্রমণকালে আপনার পার্শ্ববর্তী কোনও যাত্রী তাঁর মোবাইলে উঁচু স্বরে কথা বলতে বা উচ্চ স্বরে গান করতে কিংবা শুনতে পারবেন না। এক্ষেত্রে অবশ্য আপনার ক্ষেত্রেও একই নিয়ম বলবৎ থাকবে। সম্প্রতি রেল কর্তৃপক্ষর কাছে একাধিক যাত্রীদের থেকে রাতে আশপাশের লোকজন দ্বারা বিরক্ত হওয়ার বহু অভিযোগ সামনে এসেছিল, আর তার পরেই রেলের দ্বারা এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে খবর। এমনকী, এরপর থেকে কোনও যাত্রীকে এই নিয়ম ভাঙতে দেখা গেলে তার বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা পর্যন্ত নেওয়া হতে পারে বলে জানা গিয়েছে।

এছাড়াও অন্যান্য একাধিক নিয়ম আনা হয়েছে রেলের দ্বারা। সূত্র মারফৎ জানা গিয়েছে, রেলের নতুন নিয়ম সঠিকভাবে বাস্তবায়ন করা হচ্ছে কি না, সেই দায়িত্ব বর্তমানে দেওয়া হয়েছে রেলের সব কর্মীকে। তাঁদের দায়িত্ব, রেলযাত্রীরা নিয়ম সঠিকভাবে পালন করছে কিনা, তা লক্ষ রাখা। এমনকী, নতুন নিয়ম চলাকালীন ট্রেনে যাত্রীদের কাছ থেকে পাওয়া অভিযোগের যদি সমাধান পথ না মেলে, অর্থাৎ আইনকে সঠিকভাবে না মানা হলে রেলকর্মীদেরই তার জবাবদিহি করতে হবে। রেলমন্ত্রকের তরফে আপাতত কঠোরভাবে সকল নিয়ম পালন করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে রয়েছে আরও বেশ কয়েকটি নিয়ম।

শুধুমাত্র রাতে পাশের যাত্রীদের উঁচু স্বরে কথা বলা নয়, এছাড়াও আরও বেশ কয়েকটি অভিযোগ আসে সামনে। রেলযাত্রীদের দ্বারা সম্প্রতি অভিযোগ আনা হয়েছে, যখন ট্রেনের এসকর্ট বা রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীরা ট্রেনের মধ্যে কাজ করেন, বহু সময় তাঁদের উচ্চ স্বরে কথা বলতে দেখা যায়। এমনকী, গভীর রাতে আলো জ্বালানো নিয়ে প্রায়শই রেলযাত্রীদের মধ্যে ঝগড়া হয় বলে অভিযোগ। আর এই সব অভিযোগ সামনে আসতেই নড়েচড়ে বসেছে রেল কর্তৃপক্ষ।

 
চালু হওয়া নিয়মাবলি
১. রেলে রাত্রিকালীন ভ্রমণের সময় কোনও যাত্রী কিংবা কেউ মোবাইলে উচুঁ স্বরে কথা বলতে পারবেন না কিংবা উচ্চ আওয়াজে গান পর্যন্ত শুনবেন না।

২. রাতে ভ্রমণের সময় কমবেশি সকলেই ঘুমোন। সেই কারণে রাত্রির আলো (night light) ছাড়া অন্য কোনও লাইট জ্বালা যাবে না, অর্থাৎ সব আলো বন্ধ করা বাধ্যতামূলক।

৩. ট্রেনের ভেতর গভীর রাত পর্যন্ত সাধারণ যাত্রীরা পরস্পরের সঙ্গে কথা বলবেন না। অন্যথায় তাদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

৪. চেকিং স্টাফ, RPF থেকে শুরু করে ইলেকট্রিশিয়ান, ক্যাটারিং স্টাফ এবং রক্ষণাবেক্ষণ কর্মীরা রাতের দিকে শান্তিপূর্ণভাবে কাজ করবেন। উচ্চস্বরে কথা বলা কোনওভাবেই অনুমোদন করবে না রেল।

৫. এছাড়াও রেল কর্তৃপক্ষের নতুন নিয়মে বলা হয়েছে যে, ৬০ বছরের বেশি বয়স্ক ব্যক্তি কিংবা প্রতিবন্ধী সকল মানুষ যাতে প্রয়োজনে রেল কর্মীদের থেকে সাহায্য পান, সেই বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে। এক্ষেত্রে তাঁরা রেলকর্মীদের বিরুদ্ধে কোনওরকম অভিযোগ করলে তাঁদের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেবে রেল।

More Articles

;